টারবাইন সম্বন্ধে সংক্ষিপ্ত ধারণা

টারবাইন

টারবাইন একটি ঘূর্নয়মান মেশিন যা কাইনেটিক পটেনশিয়াল, থার্মাল এনার্জিকে মেকানিক্যাল এনার্জিতে রুপান্তরিত করে।

এতে তিন ধরনের ফ্লুইড ব্যবহার করা হয়:

  1. বাষ্প
  2. গ্যাস
  3. পানি

টারবাইন মূলত প্রাইম মুভার হিসেবে কাজ করে যা জেনারেটর এর রােটর কে ঘুরাতে এবং ইলেক্ট্রিসিটি তৈরিতে সাহায্য করে। টারবাইন হলো সবচেয়ে ক্রিটিকাল মেকানিক্যাল মেশিন। তাই একে স্পেশিয়াল কেয়ার নিতে হয় 🙂

তাপ ও গ্যাস টারবাইন

সুপার হিটেড হাই প্রেসার বাষ্প ব্যবহার করে টারবাইন কে পরিচালনা করা হয়। এর্টি থার্মাল এনার্জি কে মেকানিক্যাল এনার্জিতে রুপান্তরিত করে। আধুনিক যুগে এর ব্যবহার অনেক। এটি মূলত তিন প্রকারঃ

  1. ইম্পালস টারবাইন।
  2. রিএকশান টারবাইন।
  3. দুটো মিলে এক ধরনের টারবাইন।

ধরুন আপনি ক্যারাম খেলছেন, এখন কিছু গুটি কে আপনি ডিরেক্ট স্ট্রাইক দিয়ে ফেলতে পারেন আবার কিছু গুটি ফেলতে ক্যারামের কাঠ এর সহায়তা নেন, এখন দেখেন যখন ডিরেক্ট ফেলতে পারছেন সেটা হলো ইম্পালস টারবাইন, আর যেগুলা ঘুরে ফিরে যাচ্ছে ওইগুলাে হল রিএকশান টারবাইন।

আরাে ক্লিয়ার করি, ফ্লুয়িড যদি সােজাসুজি গিয়ে টারবাইনের প্লেট এ আঘাত করে সেসব প্লেট বিশিষ্ট টারবাইন ইম্পালস টারবাইন, আর যে গুলােতে ফ্লুয়িড আকাবাকা ভাবে প্লেট কে আঘাত করে এবং মেকানিক্যাল এনার্জি উৎপন্ন করে তাদের রিএকশান টারবাইন বলে।

আরাে কিছু টারবাইন আছে যেমনঃ স্টেজ এর উপর ভিত্তি করে, প্রেসার এর উপর ভিত্তি করে, বাষ্পের অবস্থার উপর ভিত্তি করে।

স্টীম টারবাইন

টারবাইন

স্টিম টারবাইন এ ব্লেড এর সেট থাকে যাকে (নজল বলে), মুভিং সেট (রােটর ব্লেড বলে), ডায়াফ্রাম, বেয়ারিং(জার্নাল টাইপ), গভর্নর লুব্রিকেন্ট সিস্টেম, ইনপুট, আউটপুট পাইপিং সিস্টেম, এবং এসব একটি কেসিং দ্বারা আবদ্ধ থাকে।

নজল কি করে?

এক কথায় ফ্লুয়িড এর বেগ বাড়িয়ে দেয়। ডায়াফ্রাম একে ধরে রাখে।

বিয়ারিং

বিয়ারিং এমন এক ধরনের যন্ত্রাংশ যা সকল ধরণের ঘুর্ণায়মান যন্ত্রে ব্যবহার করতে হয়। যেমনঃ চাঁকা, ফ্যান ইত্যাদিতে বিয়ারিং ব্যবহার করা হয়।

বিয়ারিং এর কাজঃ

  • লোড বহন করা।
  • শ্যাফট কে ঘুরতে সহায়তা করা ও শ্যাফটকে ধরে রাখা।
  • ফ্রিকশন কে কমানো।

গভর্নর

যা টারবাইনের স্টিম ফ্লো কন্ট্রোল এর মাধ্যমে পাওয়ার এবং স্পীড কন্ট্রোল করে।

অভার স্পীড ট্রিপ মেকানিসম

এটি টারবাইন কে বিপদ থেকে রক্ষা করে।

কাপলিং

ড্রাইভেন মেশিন এর সাথে কানেক্ট থাকে।

যেভাবে কাজ করে

  1. উচ্চ চাপ, উচ্চ তাপীয় স্টীম জেট নজলে যায়।
  2. নজেল এ ফ্লুয়িড এর বেগ আরাে বাড়িয়ে দেয়, এর মাধ্যমে টারবাইনের ব্লেড এ আঘাত করে যা শ্যাফটকে কে ঘুরাতে শুরু করে।

যে সাইকেলে কাজ করে তা হলো রেঙ্কিং সাইকেল। এর মধ্যে আরাে কিছু স্টেপ আছেঃ

গ্যাস টারবাইন

একটি আবর্তনশীল ইঞ্জিন যা দাহ্য গ্যাসের(combustion gas) প্রবাহ থেকে শক্তি গ্রহণ(extract) করে।আমরা যখন এয়ারপোর্টে যাই তখন জেটবিমান দেখা যায়। এই জেটবিমানগুলো অনেক বড় আকারের ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এই ইঞ্জিনগুলো সাধারণত টার্বোফ্যান দ্বারা চালিত। এই টার্বোফ্যানই গ্যাস টারবাইনের উদাহরণ।

আধুনিক অনেক ইন্ড্রাস্ট্রিতে গ্যাস পাওয়ার প্ল্যান্ট ব্যবহার করা হয়। এটি সাধারণত কম জায়গা নেয়, স্টার্টিং টাইম কম লাগে, পানি দরকার হয় না, কম ওজন, সহজ গঠন, কোন কনডেনসার নাই যার ফলে এর ব্যবহার ব্যাপক।

গ্যাস টারবাইন সম্বন্ধে বিস্তারিত পড়ুন h


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here