“কে বেশি বিপজ্জনক? এসি! নাকি ডিসি?”

Which one is dangerous ac or dc?

আমরা অনেকেই মনে করি যে, সমান মানের এসি এবং ডিসি ভোল্টেজের শকের তীব্রতা একই হবে। আবার অনেকেই মনে করেন ডিসি কারেন্টের শক বেশী অনুভূত হবে এসি কারেন্টের তুলনায়। কারন এসি কারেন্ট এ ফ্রিকুয়েন্সির জন্য নিজেকে বিচ্ছিন্ন করা সহজ কিন্তু ডিসিতে সেটা সম্ভব নয়।

কিন্তু আসল তথ্য হচ্ছে এসি কারেন্টের শকই বেশী অনুভূত হয় এবং বেশী প্রাণঘাতী এবং সেটা সেই ফ্রিকুয়েন্সির কারনেই। চলুন তাহলে দেখা যাক এর পেছনের কারন।

ইলেকট্রিক শক হলো একধরনের অনুভূতি যা আমাদের দেহের কোন অংশের ভেতর দিয়ে কারেন্ট প্রবাহিত হবার কারনে ঘটে থাকে। এই শকড এর পরিমান নির্ভর করে বেশ কিছু ফ্যাক্টরের উপর। যেমন কারেন্টের ধরণ(ডিসি/এসি), ফ্রিকোয়েন্সি, ভোল্টেজ এর মাত্রা, দেহের কোন অংশের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে, প্রবাহের সময় এসব। 50/60Hz এর AC শকের অনুভূতি DC এর তুলনায় ৫গুন বেশী।

electric shokআবার 50/60Hz এর AC শকের অনুভূতি 5000Hz এর AC কারেন্টের চেয়ে ৬ গুন বেশী এবং ফ্রিকোয়েন্সি বাড়ার সাথে সাথে শকড এর অনুভূতি কমতে থাকে।

এর কারন হলো পেশী নড়াচড়া করার জন্য আমাদের ব্রেইন স্নায়ুকোষের মাধ্যমে লো ফ্রিকুয়েন্সির ইলেকট্রিক সিগন্যাল পাঠিয়ে থাকে। আবার মানুষের হার্ট 60-100 bpm (বিট পার মিনিট) ফ্রিকোয়েন্সিতে স্পন্দিত হয় যা ব্রেইন থেকে ইলেকট্রিক সিগনালের মাধ্যমে হার্টে পৌছে। তাই 50-60Hz এর কারেন্টের শক বেশী অনুভূত হয় কারন এটা সরাসরি স্নায়ুতন্ত্রের সিগন্যালিংকে বাধাগ্রস্থ করে!

ফলে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কারেন্ট প্রবাহে আপনি আপনার পেশীর উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলবেন।

সেক্ষেত্রে আপনার ইচ্ছা থাকলেও বিদ্যুতায়িত বস্তু থেকে নিজেকে মুক্ত করতে পারবেন না। আর হার্টের ভেতর দিয়ে 50-60Hz এর নির্দিষ্ট পরিমাণ কারেন্ট প্রবাহ আপনার হার্টের নিয়মিত স্পন্দনকে নষ্ট করে দিবে যার ফলাফল হলো কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট এ মৃত্যু।

তাই 50-60Hz AC কারেন্ট থেকে সবসময় সাবধান। সমান ভোল্টেজের ডিসি কারেন্ট থেকে এসি বিপজ্জনক হবার আরেকটি কারন হলো মানবদেহের ত্বক এবং গ্রাউন্ড ক্যাপাসিটেন্স এর মত কাজ করে। এই গুণের কারনে AC কারেন্ট ত্বক থেকে গ্রাউন্ডে সহজে প্রবাহিত হতে পারে কিন্তু DC কারেন্ট বাধাপ্রাপ্ত বেশী হয়।

নিচের চার্ট দেখলেই বুঝতে পারবেন সমপরিমান AC কারেন্ট অধিক বিপজ্জনক। ১৫০ পাউন্ড ওজনের এক ব্যক্তির পেইনফুল শকের জন্য 62mA DC কারেন্ট লাগে যেখানে AC এর ক্ষেত্রে সেটা মাত্র 9mA ই যথেষ্ট। আবার ফ্রিকোয়েন্সি 10KHz হলে সেটা হবে 55mA।

human body electric shok

কারেন্ট প্রবাহে মানবদেহের মোট রেজিস্ট্যান্সের ৯৯% ই থাকে ত্বকে। মানবদেহের ড্রাই রেজিস্ট্যান্স যেখানে
১০০০০০ ওহম সেখানে দেহের ভেতরের রেজিস্ট্যান্স মাত্র ৩০০ ওহম। ত্বকে কোন ক্ষতের কারনে কারেন্ট দেহের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হলে তার পরিমাণ হবে অনেক এবং সেই শকড হবে বিপজ্জনক। হাই ভোল্টেজ AC এবং DC উভয়ই ত্বকের ব্রেকডাউন ঘটিয়ে ফেলে এবং দেহের ভেতর দিয়ে অধিক পরিমাণ কারেন্ট প্রবাহিত হয় যা বিপজ্জনক।

আর একটি ব্যাপার আপনারা সবই ই জানেন যে, এসি ভোল্টেজ / কারেন্ট পরিমাপ করা হয় rms এ। কিন্তু ডিসি পরিমাপ করা হয় পিক অথবা ম্যাক্সিমাম বেলুতে।

peak value, rms value
আমরা জানি, V(peak) = 1.4142* V(rms)
এজন্য বলা যায় একজন ব্যাক্তি যদি ডিসিতে ২২০V এ শক খায়, সে ২২০V এ ই শক খাবে। কিন্তু একজন ব্যাক্তি যদি এসিতে ২২০V এ শক খায়, সে সর্বোচ্চ ১.৪১৪২*২২০V = ৩১১V এ ই শক খাবে। আর ৩১১V তো ২২০ থেকে ডেফিনেটলি বড়। এজন্য এখানে ও বলা যায় যে, ডিসি থেকে এসি বেশি বিপজ্জনক।

যদি এরকম ইন্টারেস্টিং আরো মজার মজার তথ্য চান তাহলে নিচে কমেন্টে জানিয়ে দিবেন।

VIAMd Nazmul Hasan Rony
Previous articleওয়াটমিটারের গঠন, কার্যপদ্ধতি এবং সংযোগ পদ্ধতি আলোচনা
Next articleইলেকট্রিক টাইমার সুইচ ও কন্ট্রোলিং ডায়াগ্রাম | Electric Timers & Controllers
মানুষের প্রতি মুহূর্তে বিবর্তন হচেছ, মিউটেশান হচেছ। তাই গিরগিটির মতো আমিও রং বদলাতে পারি। অবাক হবার কিছু নাই। আমি আসলে বলতে চাচ্ছি যে, নিজেকে বিভিন্ন রূপে উপস্থাপন করতে আমি পছন্দ করি। :) আমি ভীষণ মাত্রায় অগোছালো। আমার মা এটা সবচেয়ে ভালো জানে। :P ঠান্ডা মাথায় ভয়ংকর ভয়ংকর অপরাধের পরিকল্পনা করতে পারদর্শী আমি। কিন্তু মজার বিষয় হলো যে, আমি নিজে কেন জানি সেসব পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়ন করতে পারি না। তাই চিন্তা করছি এই পরিকল্পনাগুলো নিয়ে ব্যবসা করার জন্য একটা অফিস নিবো। নাম দিবো, "নিখুঁত অপরাধের সহায়তাকেন্দ্র"। ইমোশনাল কথাবার্তা একদম পছন্দ করি না আমি। আমার মা ভীষণরকম ইমোশনাল। তাই মাঝেমাঝে মার উপর রাগ হয় আমার। আমার ক্রিকেট খেলতে অস্থির মজা লাগে। কিন্তু দেখতে ভালোবাসি ফুটবল খেলা। :D ভেবেচিন্তে কাজ করতে না পারা আমার একটা বৈশিষ্ট্য। চিন্তাভাবনা করা কাজ আমি গুলিয়ে ফেলি। তাই আমি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কাজের আগে কম ভাবি। :( বই পড়তে আমার কঠিন মজা লাগে। না পাঠ্যবই না, গল্পের বই। বাবা মা না বললে আমি সচরাচর পাঠ্যবই হাতে নেই না। B| I like those people যাদের রাগ প্রচন্ড বেশি থাকে। তাদের রাগ এতই বেশি হয় যে, তাদের মাথায় চায়ের পানি গরম করা যাবে। কারন I love চা। :v মানুষকে জ্বালাতে আমি জটিল মজা পাই। আবার কেউ আমাকে জ্বালালেও খারাপ লাগে না, বরং আরো ইনজয় করি। :D কিছুটা স্পষ্টভাষী আমি। এজন্য পরিচিত মহলে আমার ভালোই বদনাম আছে। :P মানুষকে বিপদে ফেলে আবার সেই বিপদ থেকে তাকে রক্ষা করা আমার অনেক প্রিয় খেলা। :P আমাকে দেখতে চুপচাপ শান্তশিষ্ট মনে করলে তুমি সাংঘাতিক ভুল করবা। আমি যথেষ্ট দুষ্ট, তা আমার সাথে পরিচয়ের কিছুদিন পরই তুমি টের পাবা। :3 আমার সম্পর্কে এতগুলা কথা জেনে আমার চেহারার সাথে তা মিলানোর চেষ্টা করলে কোনো লাভ নাই। হতাশ হবা তুমি। :)

6 COMMENTS

  1. Ektu kothin mone hoise! but interesting.

  2. ভালো লাগলো পাশে থাকুন লিখতে থাকুন

  3. Abdullah Al-mamun

    মাইকেল ফ্যারাডে জেনারেট আবিষ্কার করে তিনি সুত্র প্রদান করেন, কিন্তু এরপর ফ্লেমিং দুটি সুত্র প্রদান করেন, তা ডান হস্থ ও বাম হস্থ নিতি নামে পরিচিত।৷

  4. ধন্যবাদ ভাই

  5. this post is so much helpful for me. brother

  6. Md. Abdul Wadud

    This article is so much helpful for increasing our knowledge.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here