গল্পে গল্পে ইলেকট্রিক্যাল টাইমার নিয়ে আড্ডা

ইন্ডাস্ট্রিতে অটোমেশনের জন্য টাইমারের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। সাধারণত ফেসবুকে বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপে সিনিয়র ভাইরা এ নিয়ে পোস্ট করে থাকেন। কিন্তু কিছু বেসিক জিনিস না জানার দরুণ ব্যাপারটা অনেকটা মাথার উপর দিয়েই চলে যায়। আজ আপনাদের সাথে টাইমার কি, কিভাবে কাজ করে মোটকথা তার ফাংশন নিয়ে খুব সহজ ভাষায় আলোচনার চেষ্টা করব।

টাইমার কি?

নাম শুনেই আন্দাজ করা যাচ্ছে এই ডিভাইসটির সাথে সময়ের খুব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। তার আগে আপনাদের একটা ছোট গল্প শুনাব। কামাল বাবু খুব অলস প্রকৃতির মানুষ। যখন সন্ধ্যা হয় অন্ধকারেই শুয়ে থাকবেন কিন্তু কষ্ট করে লাইটের সুইচটা দিবেন না।

আবার যখন সকাল হবে কষ্ট করে লাইটের সুইচটা অফ করতে পর্যন্ত জড়তা অনুভব করেন। কি আলসে লোকরে বাবা!!!! কাকাবাবুর ছেলে আবার ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। সে অটোমেশন সিস্টেমের সাহায্যে একটি নির্দিষ্ট সময়ে লাইট অন এবং অফ হওয়ার বন্দোবস্ত করে দিল। এ কাজে সে ব্যবহার করল টাইমার।

টাইমার হলো একধরনের টাইম সুইচিং ডিভাইস যা বৈদ্যুতিক সার্কিট, ইলেকট্রিক্যাল এবং ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসকে টাইম সেটিং এর মাধ্যমে (অন/অফ) নিয়ন্ত্রন করে থাকে। যেমনটি কামাল কাকার ছেলে করেছিল। সে টাইমার দিয়ে বাতিটির বৈদ্যুতিক সার্কিটকে রিলের সাহায্যে একটি নির্দিষ্ট সময় পরপর নিয়ন্ত্রণ করেছিল।

এটি কয় পিনের হয়?

টাইমার বিভিন্ন পিনের হয়ে থাকে যেমন ৫ পিন, ৮ পিন, ১১ পিন এবং ১৪ পিন ইত্যাদি। এটা বিভিন্ন ভোল্টেজেরও হয়ে থাকে যেমন AC/DC 12V, AC/DC 24V, AC/DC 48V, AC/DC 110V এবং AC 220V ইত্যাদি। কয়েল ভোল্টেজের জন্যে অন্য পিন গুলি থাকবে NO এবং NC হিসাবে।

এখানে NO= Normally Open, NC= Normally Closed বুঝানো হয়েছে।

ইলেকট্রিক্যাল টাইমার
টাইমার পিন
টাইমার পিন

NC (Normally Close) ও NO (Normally Open) কি?

আসলে এগুলা দিয়ে সুইচ বা অটোমেটিক actionable device গুলোর contact কে নির্দেশ করে। সহজভাবে বললে, আমরা ফ্যাক্টরিতে যে পুশ সুইচ, ম্যাগনেটিক কন্ট্যাক্টর, রিলে ব্যবহার করি সেগুলোতে নরমালি ওপেন এবং নরমালি ক্লোজ কন্ট্যাক্ট বিদ্যমান। অপারেটর যখন সুইচ অফ করে রাখে তখন তার contact normally open condition এ থাকে। আবার যখন অন করা হবে তখন contact দুটো ক্লোজ হবে। এখানে শুধু ক্লোজ বলতে হবে। normally close নয়। এবার অপারেটর দাদা সুইচ অফ করবেন। এই মুহূর্তে সুইচ বাবু normally close condition এ থাকবে। কারণ ইতোমধ্যে সে ক্লোজ হয়েই বসে আছে। যখন অফ করা হবে তখন contact open হবে। এক্ষেত্রে শুধু open use করতে হবে। normally open নয়।

যাদের এখনো ঘটকা আছে তাদের জন্য একটা উদাহরণ দিই। ধরেন, আপনি রুমে ঢুকে কাউকে ঘুমন্ত অবস্থায় পেলেন। এই অবস্থায় সে normally ঘুমন্ত। তাকে চিল্লানি দিয়ে উঠিয়ে দিলেন। এবার আপনি রুম থেকে চলে গেলেন। অলস বেটা আবার ঘুমাবে বলে ঠিক করল। এ অবস্থায় সে normally জাগন্ত।

টাইমারে কতক্ষণ পর্যন্ত সময় সেট করা যায়?

টাইম ৩ ভাবে সেটিং করা যায়। যথাঃ

  • সেকেন্ডে (০-৬০)
  • মিনিটে (০-৬০)
  • ঘন্টায় (০-২৪)

টাইমার কিভাবে কাজ করে?

অন্যান্য কন্ট্রোলিং ডিভাইসের মত টাইমারেরও কয়েল আছে এবং এই কয়েল যখন ম্যাগনেটাইজ হয়,তখন টাইমার (অন/অফ) কাজ করে থাকে।

এখন আসুন আমরা দেখি কিভাবে টাইমার কাজ করে। টাইমার মূলত অন/অফ প্রক্রিয়ায় কাজ করে। টাইমারের দুইটি কমন প্রান্ত থাকে এবং প্রতিটা কমন প্রান্তে নরমালি ক্লোজ (অন) ও নরমালি ওপেন(অফ) কন্ট্যাক্ট থাকে। যখন টাইমাকে টাইম দ্বারা সেট করা হয়, টাইমার ঐ টাইম শেষে সে ট্রিপ করে এবং কমন এর নরমালি ক্লোজ(অন) কে ওপেন(অফ) করে দেয় এবং নরমালি ওপেন(অফ) কে ক্লোজ(অন) করে দেয়। এই ভাবে টাইমার কাজ করে।

সরাসরি উদাহারন দিয়ে বুঝানো যাক। ধরুন আপনার কাছে দুইটি মোটর আছে । আপনি চাচ্ছেন যে দুইটি মোটর ১ঘন্টা পর পর অন/অফ হব। এখন প্রথম মোটর (M1) যখন ১ঘন্টা অন থাকবে, তখন দ্বিতীয় মোটর (M2) টি অফ থাকবে। তাহলে আমরা টাইমার দ্বারা এই কাজটি করে দেখাবো।

ইলেকট্রিক্যাল টাইমার
কন্ট্রোলিং ডায়াগ্রাম
কন্ট্রোলিং ডায়াগ্রাম

চিত্রে L= লোড (মোটর) কে বুঝানো হয়েছে। ডায়াগ্রাম টি লক্ষ্য করুন, সার্কিট ব্রেকারের মাধ্যমে কারেন্ট সোর্সের পজেটিভ থেকে টাইমারে প্রবাহিত হলো। টাইমারের পাশে ৫ সেকেন্ড টাইম দেখানো হয়েছে। আমাদের এই ডায়াগ্রামে দুইটি লোড আছে। আমাদের এখন কাজ হলো আমাদের প্রথম লোড (মোটর-১) চালু করা।

টাইমারের কাজ হলো টাইম অনুযায়ী কমন কন্ট্যাক্টের সাহায্যে অন/অফ করা। আপনি যখন আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী টাইমারে টাইম সেট করবেন যেমন ৫ সেকেন্ড, ১০ মিনিট, ১ ঘন্টা ঠিক ঐ মুহূর্তে টাইমার ট্রিপ (অন/অফ)করবে।

তবে আপনি যে সময়টা সেট করলেন ঐ সময় শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত টাইমার কি করবে ?

যেহেতু টাইমারের কমনের দুইটি প্রান্ত থাকে, নরমালি ক্লোজ (অন) এবং নরমালি ওপেন (অফ)। টাইমারের কমন সব-সময় সোর্সের সাথে সংযোগ থাকে। একটু উপরের চিত্রটিতে লক্ষ্য করুন। যেহেতু কমন এর নরমালি ক্লোজ প্রান্ত এবং লোডের সাথে সরাসরি সংযোগ, কোন ধরনের বাধা নাই তাই কারন্ট এই ক্লোজ প্রান্তের মধ্যে দিয়ে লোড-১ (মটোর-১) অন রাখবে/থাকবে। এবং লোড (মটোর-২) অফ থাকবে।

কারণ কমন এর নরমালি ওপেন প্রান্ত ওপেন। এই অবস্থা ততোক্ষণ থাকবে যতোক্ষন সময় আপনি টাইমারকে টাইম দ্বারা সেট করে রেখেছেন। মানে আপনি যদি ১০মিনিট টাইমে টাইমারকে সেট করেন, এই ১০ মিনিট লোড-১ অন থাকবে টাইম শেষ না হওয়া পর্যন্ত। যখন টাইম শেষ হবে টাইমার তখন ট্রিপ (অন কে অফ করে) করবে। মানে অন্য মোটরটির নরমালি ওপেন কন্ট্যাক্ট ক্লোজ হবে। টাইমার ট্রিপ করার কারনে প্রথম মোটরটি বন্ধ (অফ) হয়ে গেলে এবং অন্য মোটর (M২) টি ১ ঘন্টার জন্য চালু হল। এখন মটর-২, ১ ঘন্টা অন থাকা অবস্থায় থাকবে এবং প্রথম মোটর-১ টি অফ থাকবে।

কন্ট্রোলিং ডিভাইস নিয়ে আরো কিছু পোস্ট

রিলে কন্ট্রোলিং ডায়াগ্রাম । ল্যাচিং সিস্টেম । পুশ বাটন সুইচ আলোচনা

ইন্ডাস্ট্রিতে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের সুইচের সাথে পরিচিতি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here