মোটর নষ্ট বা ঠিক আছে কিনা বোঝার কৌশল | মোটরের সুস্থতা যাচাই

0
304

আমরা যখন অসুস্থ হয়ে পড়ি তখন আমরা ডাক্তারের কাছে যাই। ডাক্তার আমাদের সমস্যার কথা শুনে এবং বিভিন্ন পরীক্ষা দেয়। তারপর সেই পরীক্ষার রেজাল্ট অনুযায়ী আমাদের চিকিৎসা করে। তেমনি একজন ইঞ্জিনিয়ারও হল মেশিনের ডাক্তার। তাকে মেশিনের বিভিন্ন পরীক্ষা করে বুঝতে হয় মূল সমস্যা কোথায়? অতঃপর সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হয়।

ধরুন, আপনার কোম্পানি নতুন একটি মোটর আনল। এখন দায়িত্বরত প্রকৌশলী হিসেবে আপনাকে মোটরটির সুস্থতা যাচাই করতে দেয়া হল। এমতবস্থায় আপনি ঘাবড়ে গেলে মোটেও চলবেনা। আপনাকে কিছু টেস্ট করে মোটরটি চেক করতে হবে। আজ সেই চেক করার উপায়গুলো নিয়ে আলোচনা করব। চলুন শুরু করা যাক।

প্যারামিটার চেক করা

মোটরের ধরণটি সনাক্ত করুন এবং এটির নেমপ্লেটের তথ্য পরীক্ষা করুন। মোটরটির ধরণ সনাক্ত করে তার প্যারামিটারগুলো চেক আপ করে নিতে হবে।

উইন্ডিং বা বিয়ারিং পরীক্ষা

বাধাই বা বিয়ারিং-এর পরীক্ষা করুন। আপনি হাত দিয়ে শ্যাফটটি ঘোরানোর সময় যদি প্রতিরোধ অনুভব করেন বা রাস্পিং বা স্ক্র্যাপিং শব্দ শুনতে পান তবে বিয়ারিংগুলি চেইঞ্জ করতে হতে পারে। মোটরটিতে যদি স্লিভ বিয়ারিং থাকে তবে আপনি তেল দিয়ে স্লিভ বিয়ারিংগুলিকে তৈলাক্ত করতে পারেন।

শর্ট সার্কিট পরীক্ষা

সার্কিট ওয়্যারিং এবং গ্রাউন্ডের মধ্যে শর্ট সার্কিট পরীক্ষা করে দেখুন। মাল্টিমিটারে ওহম স্কেল সিলেকশন করুন এবং 30,000 ওহম লিমিট সেট করুন। প্রতিটি পাওয়ার লিড এবং মোটর কেইসে নব সংযুক্ত করুন। প্রায় 0.2 মেগাওহমের চেয়ে কম মান দেখালে মোটরটি গ্রহণযোগ্য হবেনা।

স্টার্টার কন্ট্রোল বক্স পরীক্ষা

ক্যাপাসিটার স্টার্ট মোটরগুলোর জন্য স্টার্টার কন্ট্রোল বক্সটি পরীক্ষা করুন।

আর্থিং রেজিস্ট্যান্স পরিমাপ

একটি মাল্টিমিটার নিয়ে মোটর ফ্রেম (বডি) এবং আর্থের মধ্যে রেজিস্ট্যান্স পরিমাপ করুন। ভাল মোটরটি 0.৫ ওহমের চেয়ে কম মান দেখাবে। ০.৫ ওহমের চেয়ে বড় মান মোটরের সমস্যা নির্দেশ করে।

পাওয়ার সাপ্লাই চেক করা

পাওয়ার সাপ্লাই চেক করুন। প্রতিটি ফেজের ফেজ টু ফেজ ভোল্টেজ পরিমাপ করে দেখুন যে ৩৮০-৪৪০ ভোল্ট আছে কিনা। যদি সিংগেল ফেজ হয় তাহলে ফেজ টু নিউট্রাল ভোল্টেজ ২২০-২৫০ ভোল্ট হবে।

এসি মোটর উইন্ডিং-এর কন্টিনিউটি পরীক্ষা

একটি মাল্টিমিটার ব্যবহার করে, ফেজ টু ফেজ চেক করুন। ঠিকঠাক থাকলে প্রতিটি ধাপে কন্টিনিউটি থাকবে। কোনও নির্দিষ্ট ধাপ যদি কন্টিনিউটি পরীক্ষায় ব্যর্থ হয় তবে আপনার মোটর সম্ভবত নষ্ট হয়ে গেছে।

ফুল লোড এম্পিয়ার পরিমাপ

মোটর ফুল লোডে চলার সময় একটি ক্লিপ অন মিটারসহ ফুল লোড এম্পিয়ার মাপতে হবে এবং নেমপ্লেটে রেটিং করা মানের সাথে তুলনা করে দেখতে হবে। আপনার পরিমাপ করা মান এবং নেমপ্লেটের মানে বিস্তর ফারাক হলে বুঝতে হবে মোটরটি ঠিক নেই।

আরো কিছু আর্টিকেল

মোটর রিউইন্ডিং ক্যালকুলেশন নিয়ে আলোচনা | Motor Rewinding

MPCB – মোটর প্রটেকশন সার্কিট ব্রেকারের ময়নাতদন্ত | মোটর মামার বডিগার্ড

সিংগেল ফেজ মোটরের জন্য ক্যাপাসিটর সিলেকশন পদ্ধতি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here