মোটরের সিরিজ ল্যাম্প টেস্ট কিভাবে করব? | Continuity Test

0
1137

মোটর সিরিজ ল্যাম্প টেস্ট মূলত মোটরের সুস্থতা যাচাই করার একটি এনালগ পদ্ধতি। ইন্ডাস্ট্রিয়াল কাজকর্মে প্রচুর যান্ত্রিক শক্তির প্রয়োজন। আর এই বিপুল যান্ত্রিক শক্তির যোগান দেয় বৈদ্যুতিক মোটর। আর এই শক্তি যোগানদাতার সুস্থতা বজায় রাখাটা আবশ্যক। কোম্পানিতে নতুন মোটর আনলে কিংবা ওভারলোডজনিত কারণে মোটর বন্ধ হয়ে গেলে মোটর সুস্থ আছে কিনা তা পরীক্ষা করে নেয়া উচিত। আর এক্ষেত্রে আমরা মোটর সিরিজ ল্যাম্প টেস্ট পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারি। আজ মূলত খুব সংক্ষেপে সিরিজ ল্যাম্প টেস্ট নিয়ে আলোচনা করব।

সিরিজ ল্যাম্প টেস্ট মূলত কি টেস্ট করবে?

একটি মোটরের মূল চালিকাশক্তি হল সাপ্লাই কয়েল। এই পরীক্ষার মাধ্যমে মূলত স্টার বা ডেল্টা কানেকশনে সংযুক্ত কয়েলের কন্টিনিউটি পরীক্ষা করে দেখা হয়।

কন্টিনিউটি পরীক্ষা বলতে কি বোঝায়?

ল্যাব এক্সপেরিমেন্ট করার সময় সকলেই মাল্টিমিটার ব্যবহার করেছি। আর এই মাল্টিমিটার ব্যবহার করার আগে তার কন্টিনিউটি পরীক্ষা করে নিতে হয়। সাধারণত মাল্টিমিটারকে ওহম স্কেলে রেখে এই কন্টিনিউটি পরীক্ষা করা হয়। আপনার ব্যবহৃত ডিভাইসটি ঠিকভাবে কাজ করবে কিনা সর্বোপরি সুস্থ আছে কিনা তা যাচাই করাই হল কন্টিনিউটি টেস্ট। ইলেকট্রিক্যাল ভাষায় বললে, আপনার সরঞ্জামটির সার্কিট ওপেন নাকি ক্লোজ সেটি টেস্ট করা।

কিভাবে সিরিজ ল্যাম্প টেস্ট করব?

  • প্রথমে মোটরের টার্মিনাল বক্সটির কভার উন্মুক্ত করুন।
  • মোটরের স্টার-ডেল্টা কানেকশন বিচ্ছিন্ন করুন এবং তিনটি কয়েল L1, L2, L3 পৃথক করুন। অতঃপর কোন শর্ট লাইন থাকলে সেটিও আলাদা করে নিন।
  • এবার টার্মিনালগুলোকে A1, A2, B1, B2, C1, C2 দিয়ে চিহ্নিত করুন। এবার শুরু হবে টেস্ট ল্যাম্প পরীক্ষা।
  • টেস্ট ল্যাম্পের এক প্রান্ত A1 এবং অন্য প্রান্তটি A2 এর সাথে সংযুক্ত করুন। এখন প্রদীপটি জ্বলবে যদি এই কয়েলটি ঠিক থাকে।
  • পুনরায় টেস্ট ল্যাম্পের এক প্রান্ত B1 এবং অন্য প্রান্তটি B2 এর সাথে সংযুক্ত করুন। এখন ল্যাম্পটি জ্বলবে যদি কয়েল ঠিক থাকে।
  • একইভাবে সর্বশেষ কয়েলটির C1, C2 প্রান্তে ল্যাম্প সংযোগ করে কন্টিনিউটি পরীক্ষা করে নেয়া হয়।
  • টেস্ট ল্যাম্প জ্বলে উঠার পরিবর্তে যদি জ্বলজ্বল করে তবে এর অর্থ হল কয়েলের ইন্সুলেশন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

অস্বাভাবিক শব্দ পরীক্ষা

যদি সবকিছু ঠিক থাকে তবে 500V ডিসি মেগার ব্যবহার করে কয়েল এবং মোটর বডি মধ্যে ইন্সুলেটিং রেজিস্ট্যান্স পরিমাপ করে নেয়াই শ্রেয়। এই ইন্সুলেশন রেজিস্ট্যান্স 2 মেগাওহমের চেয়ে বেশি হওয়া উচিত। এখন, সমস্ত কয়েল কানেকশন পুনরায় প্রতিস্থাপন করুন। ঠিক অপসারণের আগে যেমন ছিল। নো-লোড অবস্থায় ট্রায়াল চালানোর জন্য 3-ফেজ মোটরে রেটেড ভোল্টেজ প্রয়োগ করুন। এক্ষেত্রে উপযুক্ত মোটর প্রটেকশন সার্কিট ব্রেকার, ফিউজ বা উপযুক্ত রেটিংয়ের এম সি বি ব্যবহার করতে হবে। উভয় বিয়ারিং এবং মোটর বডি থেকে কম্পন এবং অস্বাভাবিক শব্দ পরীক্ষা করুন। যদি এমন কোন শব্দ না হয় তাহলে মোটরটি চলতে সক্ষম।

এভাবে মোটরের সিরিজ ল্যাম্প টেস্ট করে মোটরের সুস্থতা বা কন্টিনিউটি যাচাই করা হয়ে থাকে।

মোটর নিয়ে আরো কিছু আর্টিকেল

নেইমপ্লেট দেখা ছাড়াই মোটরের কিলোওয়াট নির্ণয়

একটি জেনারেটর কখন মোটর হিসেবে কাজ করবে? | জেনারেটরের রহস্য

মোটর রিউইন্ডিং ক্যালকুলেশন নিয়ে আলোচনা | Motor Rewinding

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here